• Meni 1
  • Meni 1
  • Meni 1
  • Meni 1
  • Meni 1

রাজশাহী: শুক্রবার, ১৭ আগস্ট ২০১৮

পশুর দাম বাড়াতে এ কেমন অমানবিকতা!

স্টাফ রিপোর্টার: দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে গরু-মহিষগুলোকে ব্যাপারিরা হাটে তুলছে। পথেই পশুগুলোতে খাওয়ানো হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের এনার্জি ট্যাবলেট। এতে করে এমনিতেই শারীরিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়ছে পশুগুলো। এরপরে ক্রেতাদের মন জয় করতে হাটে তোলার আগে ব্যাপারিরা পশুগুলোর সঙ্গে করছে অমানবিক আচরণ। বড় চোঙে করে একেকটি পশুকে খাওয়ানো হচ্ছে ২০ থেকে ২৫ লিটার পানি। পশুগুলোকে স্বাস্থ্যবান দেখানোর জন্য এ কৌশল নিয়েছে পশু ব্যাপারিরা। রোববার রাজশাহী মহানগরীর সিটি বাইপাশ হাটে গিয়ে দেখা যায় এমন চিত্র।
ক্রেতাদের চোখে ধূলা দিয়ে ব্যাপারিরা হাটের মধ্যেই এমন কারবার করছেন। এ বিষয়ে অনেকেই অভিযোগ করেন। সাধারণ ব্যবসায়ীদের কয়েক জন জানান, গরু বা মহিষের পিপাসা লাগলে সাধারণত ৪ থেকে ৫ লিটার পানি খেয়ে থাকে। কিন্তু অনেক অসাধু ব্যাপারি পশুকে বেশি মোটাতাজা দেখাতে ২০ থেকে ৩০ লিটার পানি বড় চোঙের মাধ্যমে পশুদের খাওয়াচ্ছে। এতে করে পশুর পেট উচু হয়ে থাকছে ও মোটা দেখাচ্ছে। বেশী দামে বিক্রি করার জন্য গরু ব্যাপারিরা এই কাজটা করেছেন।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যাপারি জানান, পশুগুলো ভারতে থেকে অনেক পথ পাড়ি দিয়ে নিয়ে আসা হয়। কয়েক দিন বা সপ্তাহের জার্নিতে পশুগুলো ঠিকমতো না খেতে পেয়ে হাড্ডিসার হয়ে পড়ে। পশুগুলো সঙ্গে সঙ্গে হাটে তুলতে হয়। তখন ক্রেতারা দাম কম বলে। দাম বেশি পাওয়ার কারণে তারা এ ধরনের কাজ করে থাকেন।
রোববার সিটি বাইপাশ হাটে গরু কিনতে আসা আমজাদ হোসেন নামে এক ক্রেতা। পশুদের চোঙ দিয়ে জোর করে পানি খাওয়ানোর এমন দৃশ্য দেখে তিনি বলেন, পশুদেরও প্রাণ আছে। সামান্য কয়েকটা টাকা বেশি আয়ের জন্য তাদের সঙ্গে এধরনের অমানবিক আচরণ করা ঠিক না। এসব অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন।